আন্তর্জাতিকপ্রবাসী

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশী হত্যাকান্ডের পিছনের আসল গল্প।

লিবিয়ার মিজদা শহরের মর্মান্তিক হত্যাকান্ডের ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অন্তত দুই জন বাংলাদেশীর সাথে প্রবাসী কল্যাণ ফোরাম কথা বলেছে। এছাড়াও হতাহত কয়েকজন প্রবাসীর লিবিয়ায় বসবাসরত নিকটাত্মীয়ের সাথে আমরা যোগাযোগ করেছি। অন্যদিকে দূতাবাসের সাথেও যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় তথ্য যাচাইয়ের চেষ্টা করা হয়েছে। এই অবস্থায় আমাদের প্রাপ্ত তথ্য মোটামুটি নিম্নরূপ:

মিজদা শহরে সংগঠিত হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থলে মোট ৩৮ জন বাংলাদেশী জিম্মি ছিলেন। এছাড়া উক্ত ক্যাম্পে আরো শতাধিক আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের নাগরিক বন্দী ছিলেন। এই ক্যাম্পটি মিজদার স্থানীয় একজন লিবিয়ান নাগরিকের নিয়ন্ত্রণাধীন ছিল, যার বয়স মাত্র ৩০ বছর। লিবিয়া সরকারের তথ্যমতে তার নামে বিভিন্ন অপরাধ ও মানবপাচারের অভিযোগ ছিল। এছাড়াও তার সহযোগী হিসাবে আরো কয়েকজন অস্ত্রধারী কাজ করত। তারা স্থানীয় কোন মিলিশিয়া গ্রুপের সাথে সংযুক্ত থাকতে পারে। এই চক্রটি মূলত মরুভূমির মধ্য দিয়ে পাচারের সময় আফ্রিকাসহ বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের জিম্মি করে নির্যাতনের মাধ্যমে মুক্তিপণ আদায় করত।

আহত বাংলাদেশী ও তাদের আত্মীয়স্বজনদের দেওয়া তথ্যমতে, বর্ণিত বাংলাদেশীরা করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পূর্বে ক্ষেত্র বিশেষে ৬-৭ মাস আগে মানবপাচারাকারীদের সহযোগিতায় লিবিয়ার বেনগাজীতে আগমন করেন। তারা মূলত ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপ গমনের উদ্দেশ্যে লিবিয়ায় এসেছেন। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে ইতালি যাওয়া কঠিন হয়ে যাওয়ায় তারা দীর্ঘদিন ধরে বেনগাজীতে আটকে পড়েন। বর্তমানে সামার সিজন শুরু হওয়াতে পাচারকারীরা কিছু কিছু অভিবাসীদের লিবিয়ার পশ্চিম উপকূল হতে ইতালি প্রেরণ শুরু করে। যদিও তাদের বেশিরভাগ নৌকাই লিবিয়ার কোস্টগার্ডের নিকট আটক হচ্ছে। কিন্তু গত কয়েকদিন আগে বাংলাদেশী দালাল কর্তৃক প্রচারিত সাগর পথে বাংলাদেশীদের ইতালি পৌঁছানোর ভিডিও ফেইসবুকে ভাইরাল হয়। যা দেখে তারা যেকোন উপায়ে ইতালি যাওয়ার জন্য লিবিয়ার পশ্চিমাঞ্চলে আসার চেষ্টা শুরু করেন।

এই অবস্থায় বর্ণিত ৩৮ জন দুই গ্রুপে লিবিয়ার স্থানীয় বাংলাদেশী দালালদের সহযোগিতায় ১০-১৫ দিন পূর্বে মরুভূমি হয়ে বেনগাজী থেকে পশ্চিম লিবিয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেন। লিবিয়ায় বর্তমানে যুদ্ধ ও করোনার কারণে পূর্বাঞ্চল থেকে পশ্চিমাঞ্চলের শহরে যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা থাকায় পাচারকারীরা মরুভূমির অপ্রচলিত পথ দিয়ে তাদেরকে প্রেরণ করে। পথে চেকপয়েন্ট এড়ানোর জন্য মরুভূমির মধ্যে তাদেরকে অনেক পথ ঘুরতে হয়। বেনগাজী থেকে যাত্রার দুইদিন পর তাদেরকে প্রথমে এক অপহরণকারী চক্র ধরে মরুভূমিতে এক ঘরে আটকে রাখেন। এই চক্র জিম্মিদের সাথে কোন খারাপ ব্যবহার বা নির্যাতন করেনি বলে বাংলাদেশীরা জানিয়েছে।

তিনদিন পর জিম্মিদেরকে সারারাত ভ্রমণের পর মিজদার পাচারকারীদের নিকট হস্তান্তর করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে প্রথম গ্রুপটি অর্থের বিনিময়ে মিজদার গ্রুপের নিকট জিম্মিদের বিক্রি করেছে। মিজদায় আনার পর থেকে শুরু হয় তাদের উপর অবর্ণনীয় নির্যাতন। অপহরণকারীরা মুক্তিপণ হিসাবে প্রত্যেক জনের কাছ থেকে ১০-১২ হাজার মার্কিন ডলার মুক্তিপণ দাবী করতে থাকে এবং মুক্তিপণের অর্থ দুবাই প্রেরণের কথা জানান। মুক্তিপণ আদায়ে বিলম্ব হওয়ায় দিনকে দিন নির্যাতন বাড়তে থাকে।

লিবিয়ার সোশ্যাল মিডিয়া এবং আহতদের দেওয়া তথ্য মতে, গত ২৭ মে ২০২০ তারিখ দিবাগত রাতে অপহরণকারীর মূলহোতা ও তার দুয়েকজন সহযোগী পুনরায় অস্ত্রসহ জিম্মি অভিবাসীদের ক্যাম্পে আসে এবং নির্যাতন শুরুর একপর্যায়ে কয়েকজন আফ্রিকার নাগরিক তার অস্ত্র কেড়ে নিতে সক্ষম হয়। যাতে কয়েকজন বাংলাদেশীও সহযোগিতা করে থাকতে পারে বলে জানা যায়। এই অবস্থায় আফ্রিকান নাগরিকের ছোড়া গুলিতে অপহরণকারী মূলহোতা নিহত হন এবং তার সহযোগী আহত হন।

তবে এই খবরটি নিহত নিবিয়ানের পরিবার ও বন্ধুবান্ধবের কাছে বাংলাদেশীরা তাকে হত্যা করেছে বলে পৌঁছায়। একপর্যায়ে তারা প্রতিশোধ পরায়ণ হয়ে সশস্ত্রভাবে জিম্মি অভিবাসীদের ক্যাম্পে হামলা চালায় এবং নির্বিচারে গুলি ছোড়ে। যার ফলে এই বর্বরোচিত হতাহতের ঘটনা ঘটে। যদিও লিবিয়ার সোশ্যাল মিডিয়াতে উক্ত অপহরণকারী আফ্রিকানদের হাতে নিহত হয়েছেন বলে শুরু থেকেই প্রচার হয়েছে।

এই বিষয়ে বিভিন্ন উপায়ে মিজদার কয়েকজন লিবিয়ানের সাথে কথা বলে জানা যায়, নিহত লিবিয়ানের বাড়ীটি একটি বিশালাকার প্রাসাদ। যার পিছনে কিছুটা আন্ডারগ্রাউন্ডে সে অভিবাসীদের জিম্মি রাখার আস্তানা তৈরি করেছিল। এই প্রাসাদের আশেপাশে সবই তার আত্মীয়স্বজনের বাড়ী। কিন্তু তার আত্মীয়স্বজন ছাড়া স্থানীয়রা এইখানে অভিবাসীদের বন্দিশালার বিষয়ে কেউ জানতনা।

ঘটনার দিন নিহত লিবিয়ানের আত্মীয়স্বজনরা এলাকাবাসীকে কিছু টেরোরিস্ট গ্রুপ তাদের ছেলেকে হত্যা করেছে বলে ভুল বুঝিয়ে ক্ষিপ্ত করেছিল। স্থানীয়রা জানতোই না ভিতরে বাংলাদেশী আছেন। এমনকি নির্মম হত্যাকান্ডের পরও এদেরকে টেরোরিস্ট বলে প্রচার করেছিল। ঘটনার পরপরই কিছু কিছু সোশ্যাল মিডিয়ায় নিহতদেরকে লিবিয়ায় যুদ্ধরত প্রতিপক্ষের ভাড়াটে সৈন্য বলেও দাবী করা হয়েছিল। কিন্তু নিহতরা বাংলাদেশী হওয়ায় সকলে বিস্মিত হয়ে যায়। বর্তমানে স্থানীয় মিজদার নাগরিকরা এই ঘটনায় অনুতপ্ত বলে তারা জানিয়েছেন।

এই নৃশংস হত্যাকান্ডের ঘটনার সময় জিম্মি ৩৮ জন বাংলাদেশীর মধ্য ৩৫ জনের পরিচয় ত্রিপলীস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস নিশ্চিত করেছে। যাদের মধ্যে সম্ভাব্য নিহত ২৬ জনের মধ্য ২৩ জন এবং আহত ১১ জনসহ বেঁচে যাওয়া ১২ জনে পরিচয় প্রকাশ করেছে। বেঁচে যাওয়া দুইজনের সাথে কথা বললে তারা জানায়, কিভাবে তারা জীবিত আছেন তা পরিষ্কার বলতে পারেনা। কোনভাবে কারো নিচে ছাপা পড়ে বা কিনারায় পড়ে থেকে বা মৃত্যুর ভান করে হয়তো তারা বেঁচে গেছেন।

পরবর্তীতে তাদেরকে মিজদা হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানেও গণ্ডগোল দেখা দিলে তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে দ্রুত অন্য শহরে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু পাচারকারীদের ভয়ে তাদেরকে আশেপাশের কোন হাসপাতালে ভর্তি নেয়নি। এক পর্যায়ে তাদেরকে জিনতান হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে ত্রিপলীতে পাঠানো হয়। বর্তমানে আহত ১১ জন বাংলাদেশী ত্রিপলীর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে বলে দূতাবাস জানিয়েছে। অন্যদিকে এই ঘটনায় নিহত সকলের মৃতদেহ ইতিমধ্যে মিজদায় দাফন করে ফেলা হয়েছে বলে সামজিক সোশ্যাল মিডিয়ায় জানা গেছে।

এই মর্মান্তিক ঘটনার মাধ্যমে লিবিয়া হয়ে সাগর পথে ইউরোপ যাওয়ার ২৬ জন বাংলাদেশীর স্বপ্নের অন্তিম পরিণাম হলো। এই পথের স্বপ্নে প্রতি বছরই বাংলাদেশীরা প্রাণ দিচ্ছে। গত বছর এক নৌকাডুবির দূর্ঘটনায় ৩৭ জন ভূমধ্যসাগরে মৃত্যুবরণ করেছিল, যাদের লাশও পাওয়া যায়নি। এছাড়া প্রতি বছর শতশত বাংলাদেশী লিবিয়ার কোস্টগার্ডের হাতে আটক হয়ে লিবিয়ার সফর বন্দী হচ্ছেন এবং চরম নির্যাতন সহ্যের পর খালি হাতে দেশে ফিরে যাচ্ছেন। অথচ তারপরও বাংলাদেশ থেকে ইতালি যাওয়ার জন্য নতুন করে বাংলাদেশীরা অবৈধভাবে লিবিয়ায় আসছে।

কিন্তু এতসব মৃত্যুর পরও কেন বাংলাদেশীরা এই পথে পা বাড়াচ্ছে। প্রথমত: বাংলাদেশে দালালদের তৎপরতা বন্ধে সরকারের কার্যকরী উদ্যোগের অভাব এবং বছরের পর বছর ধরে চিহ্নিত পাচারকারীদের শাস্তি না হওয়া। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুধুমাত্র যারা ইতালি পৌঁছায় তাদের সফলতা পচার হওয়া। অন্যদিকে এই পথের মৃত্যুর ঝুঁকি বা ভয়াবহতা নিয়ে সরকারী-বেসরকারী পর্যায়ে পরচারণার অভাব।

দ্বিতীয়ত: লিবিয়ার অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে দেশটির সীমান্ত অরক্ষিত হয়ে পড়া। এই সুযোগ গ্রহণ করে পাচারকারীরা অভিবাসীদের কোন ধরণের ভিসা ছাড়া সরাসরি বিমানবন্দর দিয়ে লিবিয়ায় অনুপ্রবেশ করাতে পারছেন। এছাড়া স্থানীয় মিলিশিয়াদের সরাসরি সাগর পথে মানবপাচারের সাথে যুক্ত থাকায় বৃহৎ পরিসরে অনেকটা উন্মুক্তভাবে পাচার কার্যক্রম করতে পারা।

তৃতীয়ত: বাংলাদেশীদের অতি লোভ। অনেকক্ষেত্রে একই গ্রামের পাশের ছেলে ইতালি পৌঁছানোর খবরে লোভে পড়েন। ফলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের ছেলেকে ইউরোপ পঠানোর জন্য বিপুল অর্থের যোগান দেওয়া হয়।

এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য বাংলাদেশ সরকারের কঠোর অভিবাসন নীতি এবং আইনের বাস্তবায়নের গ্রহণের বিকল্প নেই। আমরা শুধুমাত্র কোন দূর্ঘটনা ঘটলে সাময়িক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎতপরতা দেখি। কিন্তু মানবপাচার বন্ধের জন্য বছরব্যাপী তৎপরতা চালানো প্রয়োজন। বাংলাদেশে এন্টি টেরোরিস্ট ইউনিটের মতো মানবপাচার বিরোধী একটি স্থায়ী ইউনিট গঠন করা খুবই জরুরী হয়ে পড়েছে। যারা সারা বছর গোয়ান্দা কার্যক্রমের মাধ্যমে শুধুমাত্র মানবপাচার প্রতিরোধের কাজে নিয়োজিত থাকবে।

সর্বোপরি এই মৃত্যুর মিছিল বন্ধ করতে সকলের সচেতন হওয়ার বিকল্প নেই। বিশেষ করে মানবপাচার এবং অবৈধ অভিবাসন নিয়ে মিডিয়ার অগ্রবর্তী ভূমিকা রাখতে হবে। অবৈধ অভিবাসনের ঝুঁকি ও ভয়াবহতা নিয়ে খবরের পাশাপাশি ভুক্তভোগীদের সাক্ষাৎকার নিয়ে নিয়মিত প্রতিবেদন প্রচার করা যেতে পারে।

তাছাড়া মিডিয়াকে খবর প্রকাশের ক্ষেত্রে আরো সচেতন হতে হবে। অনেক বছর পর সম্প্রতি ইতালি সরকার শুধুমাত্র গৃহ পরিচারক ও কৃষিক্ষেত্রে কর্মরত কিছু অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতার সুযোগ দিয়েছে। অথচ এই খবরের গভীরে না গিয়ে আমাদের সব মিডিয়া ইতালিতে লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশী বৈধ হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে বলে প্রচার করেছে। যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে শেয়ার হয়েছে এবং অনেকেই এই পথে পা বাড়াতে আগ্রহী হয়েছে। বাস্তবিক অর্থে ইতালিতে বর্ণিত দুই পেশায় অবৈধ বাংলাদেশীরা তেমন একটা যুক্ত নেই।

অন্যদিকে লিবিয়ায় যতদিন পর্যন্ত একটি স্থিতিশীল সরকার ফিরে আসবেনা ততোদিন সাগর পথে ইউরোপ প্রেরণের পাচার কার্যক্রম চালু থাকবে। কারণ মানবপাচারকে অনেক ক্ষেত্রে সরকার ইউরোপিয়ানদের সাথে বিভিন্ন দেন দরবারের হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করে আসছে। অন্যদিকে মানবপাচার এখানকার স্থানীয় মিলিশিয়াদের অর্থ উপার্জনের মূল মাধ্যম। ফলে লিবিয়া অংশে আপাতত মানবপাচার বন্ধ হবে না। এছাড়া এই চক্রের সাথে যুক্ত হয়েছে স্থানীয় বাংলাদেশী দালাল চক্র। যাদেরকে লিবিয়ার বর্তমান পরিস্থিতিতে আইনের আওতায় আনা প্রায় অসম্ভব। এরা এতই অপ্রতিরোধ্য যে লিবিয়ায় ২৬ জন বাংলাদেশীকে হত্যার দিনও বাংলাদেশীদের সাগর পথে ইতালি পৌঁছানোর মিথ্যা চমকপ্রদ খবর ফেইসবুকে প্রকাশ্যে প্রচার করেছে। ফলে লিবিয়ায় চিহ্নিত পাচারকারী বাংলাদেশীদের পরিবারের বিরুদ্ধে দেশে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের বিকল্প নেই।

অথচ আইওএম-এর তথ্য মতে গত সপ্তাহে প্রায় ৪০০ জন অভিবাসীকে কোস্টগার্ড আটক করেছে। যেখানে ১৭০ জনের অধিক সংখ্যক বাংলাদেশী আছে। লিবিয়ায় প্রবাসীদের ফেইসবুকে দেওয়া তথ্যমতে যাদের অনেককে অপহরণকারী চক্রের নিকট বিক্রি করে দেওয়ার খবর জানা যাচ্ছে এবং মুক্তিপণের জন্য নির্যাতনের ভিডিও শেয়ার হচ্ছে। এই অবস্থার মধ্যেও ইতালিতে অভিবাসন প্রত্যাশী বাংলাদেশীরা থেমে যাবে বলে মনে হয়না। হয়তো দেখা যাবে এই দূর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া বাংলাদেশীদের কেউ কেউ দেশে ফেরত না গিয়ে সাগর পথে ইতালি যাওয়ার মৃত্যুর ঝুঁকি নিবে এবং তাদের পরিবার পুনরায় অর্থের যোগান দিবে। বিষয়টা এমন যেন আমাদের জীবনের একমাত্র লক্ষই ইতালি গমন।

তবে মর্মান্তিক এই ঘটনার পর সকলের শুভবুদ্ধির উদয় হবে বলে আশা করছি। এখন অনেকেই অবৈধ অভিবাসনের বিরুদ্ধে কথা বলছে। আশা করছি এইখানেই থেমে না গিয়ে সকলের সচেতনা মূলক প্রচারণা অব্যাহত থাকবে। আমাদের পেইজের পক্ষ থেকে নিয়মিতভাবেই সাগর পথে অভিবাসনের নেতিবাচক দিক এবং ভয়াবহ পরিনাম তুলে ধরে ক্ষুদ্র প্রচারণা চালিয়ে আসছি। এই সংক্রান্ত আমাদের দুয়েকটি পোস্টের লিংক নিচে দেওয়া হলো।

কপি ফেইসবুক থেকে নেওয়া হয়েছে। লিবিয়া

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close